ঢাকাবুধবার , ১৫ নভেম্বর ২০২৩
  • অন্যান্য
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চৌদ্দগ্রামে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নবনির্মিত ৮টি বহুতল ভবনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

মুহা. ফখরুদ্দীন ইমনঃ
নভেম্বর ১৫, ২০২৩ ৪:৫৭ অপরাহ্ণ । ৮০ জন

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে তিনটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তিনটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও দুইটি মাদরাসা সহ আট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নবনির্মিত বহুতল ভবনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) সকালে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালী এসব ভবনের উদ্বোধন করেন তিনি।

উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অফিস ও শিক্ষা প্রকৌশল অফিস সূত্রে জানা গেছে, সাড়ে ১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত নান্দনিক এসব ভবনের মধ্যে ২ কোটি ৯৭ লাখ ৩৫ হাজার টাকা ব্যয়ে পৌরসভাধিন চৌদ্দগ্রাম ফয়জুন্নেছা মহিলা মাদরাসার চারতলা একাডেমিক ভবন, ২ কোটি ৯৪ লাখ ৬৯ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার মুন্সীররহাট ইউনিয়নের বসন্তপুর ইসলামিয়া বালিকা দাখিল মাদরাসার চারতলা একাডেমিক ভবন, ২ কোটি ৮৮ লাখ ২১ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার উজিরপুর ইউনিয়নের ভাটবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা একাডেমিক ভবন, ২ কোটি ৮৮ লাখ ২৯ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের চৌমুহনী মুজিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা একাডেমিক ভবন, ২ কোটি ৫১ লাখ ৪১ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের বাতিসা উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা একাডেমিক ভবন, ৭৩ লাখ ২৮ হাজার ২০২ টাকা ব্যয়ে শুভপুর ইউনিয়নের পদুয়া খামারপুষ্করণী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন, ৮৯ লাখ ৬৫ হাজার ৯৬৫ টাকা ব্যয়ে একই ইউনিয়নের হাজারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন ও ৬৪ লাখ ৪৩ হাজার ৫৩৪ টাকা ব্যয়ে কনকাপৈত ইউনিয়নের তারাশাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ করা হয়।

এদিকে নবনির্মিত এসব ভবন উদ্বোধন উপলক্ষে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা মিলনায়তনে এক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক রেলপথ মন্ত্রী মো: মুজিবুল হক এমপি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) তমালিকা পাল, পৌর মেয়র জিএম মীর হোসেন মীরু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ রহমত উল্লাহ বাবুল, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এবিএম এ বাহার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রাশেদা আখতার সহ বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান-মেম্বারবৃন্দ, সাংবাদিক, শিক্ষক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তাবৃন্দ।