ঢাকাশনিবার , ৯ ডিসেম্বর ২০২৩
  • অন্যান্য
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কুমিল্লার শিক্ষাবোর্ড সেরা ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী কলেজ

admin
ডিসেম্বর ৯, ২০২৩ ৪:০৯ অপরাহ্ণ । ১০২ জন

বৃহত্তর কুমিল্লা জেলার ঐতিহ্যবাহী ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার প্রাণকেন্দ্র ভগবান সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের উত্তর দিকে ১৯৯৯ সালে প্রতিষ্ঠাতা করেন মোশাররফ খান চৌধুরী কলেজ। ২০০০ সালে কলেজটি যখন নতুন ও পশ্চিম দিকে একটি মাত্র টিনের তৈরি ভবনে ক্লাস শুরু করেছে আমি দেখে এসেছি। কলেজের প্রতিষ্ঠাতা আন্তর্জাতিক সমাজকর্মী, সফল আমেরিকা প্রবাসী, মানবিক ও মহৎ ব্যক্তিত্ববান জনাব মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী।

উনার সর্বোচ্চ পরিশ্রম, ত্যাগ, শিক্ষকদের পরিশ্রম, স্হানীয়দের সহযোগীতা ও সাবেক সফল আইনমন্ত্রী মরহুম আব্দুল মতিন খসরু’র একান্ত প্রচেষ্টায় কলেজটি খুব সহজেই সফল হয়ে যায় এবং ভালো ফলাফল করে কুমিল্লা বোর্ডের অন্যতম সেরা কলেজ হয়ে সকলের নজরে আসে ও সারাদেশব্যপী পরিচিতি লাভ করে।

আমাদের উপজেলায় অন্যান্য উপজেলার মতো স্বনামধন্য ও একাধিক তেমন কোনো কলেজ ছিলোনা। জনাব মোশারফ হোসেন খান চৌধুরী নিজে এককভাবে কলেজ প্রতিষ্ঠাতা করে, সুন্দর সুশৃঙ্খলভাবে পরিচালক করে আজ ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা বোর্ড সেরা ও সারাদেশব্যপী পরিচিত। এইতো গত কয়েকদিন পূর্বে এইচএসসি ২০২৩ পরীক্ষায় কুমিল্লা বোর্ডের সেরা ও তৃতীয় স্হান অর্জন করেছে। সংশ্লিষ্ট সকলকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

নিম্নে এক নজরে জনাব মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী’র হাতে গড়া প্রতিষ্ঠানের নাম দেয়া হলঃ প্রতিষ্ঠাতাঃ মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী কলেজ আব্দুল মতিন খসরু মহিলা ডিগ্রী কলেজ আব্দুর রাজ্জাক খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয় মুমু রোহান কিন্ডারগার্টেন আশেকা জোবেদা ফোরকানীয়া মাদ্রাসা ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা, কুমিল্লা।

এই কলেজে অনার্স ও মাস্টার্স পর্যন্ত পড়ানো হয় ও অনুমতি রয়েছে। উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা রয়েছে ও পরীক্ষার কেন্দ্র রয়েছে। নিঃসন্দেহে জনাব মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী একজন সফল মানুষ ও দেশ সেরা শিক্ষানুরাগী। আমি মনে করে শিক্ষাখাতে অবদানের জন্য উনাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে একুশে পদক ঘোষণা করা বা দেয়া একান্ত প্রয়োজন। সংশ্লিষ্ট বিভাগের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

বিপাড়া ডায়াবেটিক হাসপাতাল প্রতিষ্ঠায় ১ কোটি টাকার জমি দান করেছেন।সম্প্রতিঃ বিপাড়া কলেজা পাড়ায় জামে মসজিদ ও হাফেজিয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার জন্য ৫০ লক্ষ টাকার জমি ওয়াকফ করে দিয়েছেন।

.
ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার কৃতি সন্তান, যার নামের আগে ও পরে কোন বিশেষণ প্রয়োজন হয় না এবং বিশেষণ ব্যবহার করলেও শেষ করা যাবেনা তিনি হলে হলেন সর্বজন প্রিয় জনাব মোশাররফ খান চৌধুরী। বাংলাদেশের সুশিক্ষিত, ধনাঢ্য, ব্যবসায়ী, শিল্পপতি, প্রবাসী ও নেতাদের জন্য অনুকরণীয় ব্যক্তি জনাব মোশারফ খান চৌধুরী। একজন সাধারণ প্রবাসী থেকে আজ অসাধারণ মহৎ ব্যক্তিত্ববান মানুষ হিসেবে দেশ বিদেশে যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছেন।

জনাব মোশাররফ খান চৌধুরী ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা সদর ইউনিয়নের ধান্যদৌল গ্রামের চৌধুরী বংশের সোনার টোকরা সুযোগ্য সন্তান। আমেরিকা প্রবাসী ও ট্যাক্সিচালক একজন বড় মনের সাহসী সুপুরুষ, শিক্ষানুরাগী, দানবীর ও বিশিষ্ট সমাজসেবক। আমেরিকার মতো দেশে থেকে ও নিজ মাতৃভূমিকে ভুলে যাননি এবং নিজেকে নিয়োজিত করেছেন কল্যাণকর কাজে। জনকল্যাণকর সব গুলো কাজেই অত্যন্ত সুনামের সাথে সফল হয়েছেন।

কোটি কোটি টাকা সম্পদ ও টাকা ডোনেট করে অনেক গুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। উনার প্রতিষ্ঠিত মোশারফ খান চৌধুরী কলেজ কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড এর অন্যতম শ্রেষ্ঠ কলেজ ও অনার্স কোর্স চালু রয়েছে। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অত্যন্ত সফলতার পরিচালিত হচ্ছে।

এমন কীর্তিমান ব্যক্তি প্রতিটি গ্রাম ও উপজেলায় থাকলে সোনার দেশ হতে বেশি সময় লাগতো না। বিভিন্ন গ্রাম ও উপজেলায় অনেক ধনাঢ্য ব্যক্তি রয়েছেন কিন্ত নিজ এলাকার কোন খবর নেয় না কিংবা নিজ বাড়ী বা প্রতিবেশীদের কোন খবর রাখেনা। জনাব মোশারফ খান চৌধুরীর কাছ থেকে শিক্ষা নেয়ার জন্য বিনীত আহব্বান করছি। উনি, উনার গ্রাম ও এলাকার গরিব অসহায় মানুষের বিপদের সাথী ও হৃদয়ের মানুষ। সকলেই উনাকে ভালবাসেন ও দুআ করেন। শুধু বিপাড়া উপজেলায় নয়, বুড়িচং উপজেলার বিভিন্ন সামাজিক কাজে জড়িত ও সাহায্য করে থাকেন। আমাদের জানপদে একসময় ভালো কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল। আলহামদুলিল্লাহ্‌ আজ অনেক গুলো স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে।

গত তিনামাস পূর্বে বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ শ্যামপুর আলী নেওয়াজ হাইস্কুলে সাহায্য করেছেন ও নিয়মিত খোঁজখবর নিচ্ছেন। জনাব মোশারফ খান চৌধুরীর জন্য অনেক দুআ ও শুভ কামনা রইলো। নেক্ক হায়াত দিন, সুস্হ রাখুন। আমীন।

সুন্দর ও সফল হোক আগামীর পথচলা।

লেখক : শাহজালাল আল-নাগর (সমাজকর্মী)